1. admin@bangladeshshomachar.com : admin :
করোনাকালে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক মমিনুর রহমানের মানবিকতা; ত্রাণ সহায়তা পাচ্ছে বিভিন্ন শ্রেনী-পেশার মানুষ - দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার
সোমবার, ০২ অগাস্ট ২০২১, ০৩:২৪ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
মাঝারি ও ছোটরা এখনো দুর্দিনে করোনা থেকে সুস্হ্য হয়ে ডেঙ্গু জ্বরে মৃত্যু বরণ করলেন ইঞ্জিনিয়ার ওয়াহিদুর রহমান হিরক ৮ মাসের এক অন্তঃসত্ত্বা নারী চুরি করতে গিয়ে ধরা! শোক বার্তাঃ বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার হয়েছে; তবে ষড়যন্ত্রের পেছনে কারা ছিল একদিন বের হবে : প্রধানমন্ত্রী করোনা প্রতিরোধে মাস্ক ব্যবহারের বিকল্প নেই: মোস্তারী মোরশেদ স্মৃতি আটক দুই মডেল হচ্ছেন রাতের রাণী!মদ ও ইয়াবা খাইয়ে আপত্তিকর ছবি তুলে ব্ল্যাকমেইল করতেন চট্টগ্রামে গত ২৪ ঘণ্টায় ১১ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত ৯৮৫ গোয়েন্দা পুলিশের অভিযান;মডেল পিয়াসার পর ইয়াবাসহ আটক মৌ আক্তার কল দিলেই বিনামূল্যে মিলবে আইসিইউ এম্বুল্যান্স সেবা হেলেনার বিপুল সম্পদের সন্ধান পেয়েছে র‍্যাব!

করোনাকালে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক মমিনুর রহমানের মানবিকতা; ত্রাণ সহায়তা পাচ্ছে বিভিন্ন শ্রেনী-পেশার মানুষ

Reporter Name
  • প্রকাশিত : শুক্রবার, ১৬ জুলাই, ২০২১
  • ৫ জন দেখেছেন
Spread this news to


কমল চক্রবর্তীঃ সিনিয়র স্টাফ রিপোর্টার

করোনাকালীন পরিস্থিতিতে পুরো বাংলাদেশের মত চট্টগ্রামও এক কঠিন সময় অতিক্রম করছে। দুর্বিষহ হয়ে পেড়েছে জনজীবন। নিন্মবিত্ত ও মধ্যবিত্তসহ বিভিন্ন শ্রেনী পেশার লোকজন কর্মহীন হয়ে পড়েছে। অসহায় হয়েছে পড়েছে অস্বচ্ছল, ছিন্নমূল, বাস্তুহারা, হতদরিদ্র, শারীরিক প্রতিবন্ধী, ইমারত নির্মাণ ও পরিবহন শ্রমিকসহ বিভিন্ন শ্রেনী পেশার লোকজন। আর এই অসহায় মানুষদের জন্য মানবিকতার হাত বাড়িয়েছেন চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক মমিনুর রহমান। করোনা প্রতিরোধে সরকারী নির্দেশনা বাস্তবায়নের পাশাপাশি মানবিক কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছেন। নিয়মত ত্রাণ ও নগদ অর্থ সহায়তা দিয়ে চট্টগ্রামের অসহায় মানুষের ভরসার জায়গায় পরিণত হয়েছেন। ইতিমধ্যে জেলা প্রশাসনের ত্রান ও নগদ অর্থ সহায়তা পেয়েছেন কয়েক হাজার অসহায় ও অসচ্ছল মানুষ।এছাড়া ৩৩৩ নাম্বারে কল দিয়ে খাদ্য সহায়তা চাওয়া নিন্মবিত্ত ও মধ্যবিত্ত লোকদের মাঝেও পৌঁছে দিচ্ছেন খাদ্য সহায়তা।

লকডাউন চলাকালীন সময়ে সরকারী নির্দেশনা বাস্তাবায়নে মাঠে তৎপর রয়েছে জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত। সরকারী নির্দেশনা অমান্যকারীদের জরিমানার চেয়ে সচেতন করার উপর বেশী জোর দিয়েছেন জেলা প্রশাসক। বেশীরভাগ ক্ষেত্রে যারা অহেতুক বিধি নিষেধ অমান্য করছেন তাদেরকেই জরিমানা করা হয়েছে। আবার দেখা গেছে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা কালে যারা লকডাউন অমান্য করে ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান খুলেছেন তাদের অসহায়ত্বের কথা শুনে জরিমানার পরিবর্তে দিয়েছেন ত্রাণ সহায়তা।

নগরীর খুলশী এলাকার জাকির হোসেন রোডের মহিলা কলেজ মোড়ে পরিবারের একমাত্র আয়ের উৎস এক লন্ড্রি দোকানী বিধবা ফয়জুননেসা। সাথে থাকেন বিবাহিত কন্যা। পরিবারের খরচ চালাতে এমনিতেই হিমশিম খেতে হয় তাকে। এরমধ্যে কঠোর লকডাউনের কারণে দোকান বন্ধ ছিল কিছুদিন। তাই না খেয়ে থাকতে হয়েছে তাদের। পরে বাধ্য হয়ে গত ৮ জুলাই সরকার ঘোষিত কঠোর বিধিনিষেধ উপেক্ষা করে লন্ড্রি দোকান খোলা রাখেন ফয়জুননেসা। সেদিন দায়িত্ব পালনকারী ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট গালিব চৌধুরী তাকে অর্থদণ্ডের সাজা দেন। ভ্রাম্যমাণ আদালতে দোষ স্বীকার করলেও নিজের অসহায়ত্বের কথা জানান নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে।  

আকবর শাহ থানার পূর্ব গামাপাড়ায় একটি সেলুনে কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করেন শিবু দাশ। তিনিও একা পরিবার চালান। বাসা ভাড়া দিতে না পেরে বাধ্য হয়ে দোকান খুলেছেন। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে জানান নিজের অসহায়ত্বের কথা।

খুলশী থানাধীন নাসিরাবাদ এলাকায় সেলুনে কাজ করা মো. ইয়াসিন এবং একই এলাকার শহর আলী কলোনির ইয়ার হোসেনও নিজেরদের অসহায়ত্বের কথা খুলে বলেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এর কাছে। তারা জরিমানার পরিবর্তে পান জেলা প্রশাসনের মানবিক ত্রাণ সহায়তা।

ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনাকারী নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট গালিব চৌধুরী ঘটনাস্থল থেকে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মমিনুর রহমানকে সাজাপ্রাপ্ত চারজনের অসহায়ত্বের কথা জানালে জেলা প্রশাসক সাথে সাথেই এসব অসহায় ব্যক্তির কাছে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সাহায্য পৌঁছে দিতে নির্দেশনা দেন। জেলা প্রশাসনের নির্দেশনা অনুযায়ী নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট গালিব চৌধুরী নিজে তাদের প্রত্যেকের কাছে চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসকের পক্ষে সাহায্য পৌঁছে দেন এবং তাদের পাশে থাকার আশ্বাস দেন।  

ত্রান সহায়তা পৌঁছে দিচ্ছেন জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট গালিব চৌধুরী

এছাড়া চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক লকডাউনে কর্মহীন ও অসচ্ছল হয়ে পরা বিভিন্ন শ্রেনী- পেশার লোকদের মাঝে ত্রান বিতরণ(মাননীয় প্রধানমন্ত্রী প্রদত্ত উপহার সামগ্রী) করেছেন, তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য২০ এপ্রিল নগরীর কাজেম আলী স্কুল এন্ড কলেজ মাঠে ৩৫০ জন অস্বচ্ছল নরসুন্দর ও চর্মকারদের মাঝে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী প্রদত্ত ৩৫০ প্যাকেট উপহার সামগ্রী (ত্রাণ) বিতরণ। ২২ এপ্রিল জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে কাজেম আলী স্কুল এন্ড কলেজ মাঠে ৪’শ জন অসহায় প্রতিবন্ধীর মাঝে এসব উপহার সামগ্রী বিতরণ। ২৬ এপ্রিল মহানগরীর নৈতিক স্কুলে ১১০ জন সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের হাতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উপহার তুলে দেয়া হয়। ২৭ এপ্রিল জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে নগরীর পাহাড়তলী গার্লস স্কুল এন্ড কলেজ মাঠে ৫’শ অসহায় ও কর্মহীনের মাঝে এসব উপহার সামগ্রী বিতরণ। ২৮ এপ্রিল নগরীর দুঃস্থ শিল্পী, অস্বচ্ছল নির্মাণ শ্রমিক, ভ্যান চালক ও দিনমজুরদের জামালখানস্থ ডা. খাস্তগীর সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে ৬১০ জন অস্বচ্ছল মানুষের মাঝে উপহার সামগ্রী বিতরণ। ১ মে নগরীর পাহাড়তলী গার্লস স্কুল এন্ড কলেজ মাঠে চট্টগ্রাম নগরীর প্রতিবন্ধীদের মাঝে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী প্রদত্ত ২৫০ প্যাকেট উপহার সামগ্রী (ত্রাণ) বিতরণ। ৩ মে সোমবার বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা ‘অপরাজেয় বাংলাদেশ’র সুবিধাবঞ্চিত ৫০ জন শিশু(মাননীয় প্রধানমন্ত্রী প্রদত্ত ত্রাণ ও ফল সামগ্রী বিতরণ)। ২১ জুন আদালত ভবনস্থ মুদ্রাক্ষরিক কল্যাণ সমিতির ২২ জন সদস্য(নগদ অর্থ সহায়তা)। ৩ জুলাই নগরীর এম এ আজিজ স্টেডিয়াম সংলগ্ন জিমনেসিয়াম হলে নগরীর বিভিন্ন পাহাড়ের পাদদেশে বসবাসরত ও অতিবর্ষণে ক্ষতিগ্রস্ত অসহায়, দুস্থ ও হতদরিদ্র ২৭৮ পরিবারকে ১ হাজার টাকা করে নগদ অর্থ সহায়তা। ৬ জুলাই এম.এ আজিজ স্টেডিয়াম সংলগ্ন জিমনেসিয়াম হলে মহানগর ছিন্নমুল সমবায় সমিরি ৩’শ সদস্যকে ত্রাণ সহায়তা। ৭ জুলাই এম.এ আজিজ স্টেডিয়াম সংলগ্ন জিমনেসিয়াম হলে মহানগরীর ৩’শ নির্মাণ শ্রমিক পরিবারকে ত্রাণ সহায়তা। ১০ জুলাই এম.এ আজিজস্টেডিয়াম সংলগ্ন জিমনেসিয়াম হলে মহানগরীর বিভিন্ন কনভেনশন হল ও ডেকোরেটার্সের ৩’শ শ্রমিক কে ত্রাণ সহায়তা। ১১ জুলাই এম.এ আজিজ স্টেডিয়াম সংলগ্ন জিমনেসিয়াম হলে মহানগরীর দৃষ্টি প্রতিবন্ধী, অটোরিক্সা-টেম্পু ও   বিভিন্ন মটর শ্রমিকসহ ৩’শ সদস্যকে ত্রাণ সহায়তা। ১২ জুলাই এম.এ আজিজ স্টেডিয়াম সংলগ্ন জিমনেসিয়াম হলে মহানগর সড়ক পরিবহন শ্রমিক ২৫৪ জনকে ত্রাণ সহায়তা।১৫ জুলাই এম এ আজিজ স্টেডিয়াম মাঠে চট্টগ্রাম নগরীর অস্বচ্ছল, ছিন্নমূল, বাস্তুহারা, হতদরিদ্র, শারীরিক প্রতিবন্ধী, ইমারত নির্মাণ ও পরিবহন শ্রমিকসহ বিভিন্ন শেণি- পেশার অসহায় ১৬০০ পরিবারের মাঝে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী প্রদত্ত উপহার সামগ্রী (ত্রাণ) বিতরণ।


জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মমিনুর রহমান বলেন, বর্তমানে দেশ এক ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছে। করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় হিমশিম খেতে হচ্ছে সরকারকে পাশাপাশি নগরবাসীকেও অনেক কষ্ট ভোগ করতে হচ্ছে।এদিকে সরকার ঘোষিত কঠোর বিধিনিষেধ বাস্তবায়ন করতে আমাদের নিয়মিত অভিযান পরিচালনা অব্যাহত আছে। পাশাপাশি নগরীর অস্বচ্ছল, ছিন্নমূল, বাস্তুহারা, হতদরিদ্র, শারীরিক প্রতিবন্ধী, ইমারত নির্মাণ ও পরিবহন শ্রমিকসহ বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষদের মাঝে ত্রাণ সহায়তা দেওয়া হচ্ছে। বিধি- নিষেধের কারনে বন্ধ রয়েছে দোকান পাট ও ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান। তবে এরমধ্যে কিছু মানুষ বিভিন্ন সমস্যার কারণে দোকান খোলা রাখতে বাধ্য হয়। এদের অনেকের অসহায়ত্বের কথা শুনে জরিমানার পরিবর্তে মানবিক দিক বিবেচনায় জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ত্রান সহায়তা দেয়া হয়েছে। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে অসহায় মানুষদের সহায়তা দান অব্যাহত থাকবে।

তিনি বলেন,এছাড়া মধ্যবিত্তদের মধ্যে যারা ৩৩৩ নাম্বারে কল দিয়ে খাদ্য সহায়তা চাচ্ছে তাদের খাদ্য সহায়তা দেয়া হচ্ছে। আশা করছি আল্লাহর কৃপায় করোনা পরিস্থিতি থেকে আমরা অচিরেই মুক্তি পাব। সকলকে সরকারী বিঁধি নিষেধ মেনে চলার পরামর্শ দিয়ে জেলা প্রশাসক বলেন, জনসচেতনতা তৈরী না হলে প্রশাসন বা সরকারের একার পক্ষে পরিস্থিতির উন্নয়ন সম্ভব নয়। সবাইকে সজাগ ও সচেতন থাকতে হবে।

বিএস/কেসিবি/সিটিজি/১০ঃ৪২পিএম

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো সংবাদ

About Us

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ ড. খান আসাদুজ্জামান
ঠিকানাঃ এম এস প্লাজা (৮তলা) ২৮সি/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড, মতিঝিল, বা/এ, ঢাকা-১০০০
নিউজ সেকশনঃ ০১৬৪১৪২৮৬৭০
বিজ্ঞাপনঃ ০১৯৯৬৩০৩০৭১
মফস্বলঃ ০১৭১৫২২৮৩২২
ই-মেইলঃ bangladeshshomachar@gmail.com
ওয়েবসাইটঃ www.bangladeshshomachar.com
ই-পেপার: www.ebangladeshshomachar.com
© All rights reserved © 2021 The Daily Bangladesh Shomachar
প্রযুক্তি সহায়তায় একাতন্ময় হোস্ট বিডি