খরস্রাতায় ঐতিহ্য হারাচ্ছে নাটোরের বড়াল নদ

নাটোর প্রতিনিধি
নাটোরে কালের খরস্রোতায় বড়াল নদ শুকিয়ে তার ঐতিহ্য হারাতে বসেছে। নদটি নাব্যতা হারিয়ে এখন ফসলের মাঠে পরিনত হয়েছে। নদের বুকে ধানসহ বিভিন্ন ফসলের জন্য হালচাষ করা হচ্ছে। উজানে বাঁধ দিয়ে ইরিগেশনের জন্য সেচ দেয়া, অপরিকল্পিত বাঁধ নির্মান এবং যাতায়াতের জন্য নদের বুকে একাধিক ব্রীজ নির্মান করে নদের স্বাভাবিক প্রবাহ বাধা গ্রস্থ করার কারণে এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। তাছাড়া প্রমত্ত পদ্মায় পানি প্রবাহ স্বাভাবিক না থাকায় পদ্মার শাখা বড়াল নদের এ অবস্থা হয়েছে বলে বিশেষজ্ঞরা মনে করেন। নদের বুকে পলি জমে জমে উঁচু হয়েছে, দু’পাড় চেপে গেছে এবং নদের পাড়ে বিভিন্ন স্থাপনা তৈরী করা হয়েছে। নদের চর ভূমি গ্রাসীরা দখল করে নিয়েছে।
রাজশাহী জেলার চারঘাট নামক স্থান থেকে পদ্মার শাখা হিসেবে বড়াল নদের উৎপত্তি হয়ে বাঘা, বাগাতিপাড়া, বড়াইগ্রাম, চাটমোহর, ভাংগুড়া ও ফরিদপুর উপজেলার মধ্য দিয়ে বাঘাবাড়ী হয়ে হুড়া সাগরের বুকে মিশে নাকালিয়ায় যমুনা নদীতে পড়েছে। শুধু বাগাতিপাড়া উপজেলার বুক চিরে প্রায় ২২ কিঃ মিঃ পথ অতিক্রম করেছে। এক সময় যোগাযোগের সুবিধার কারনে বড়াল নদের দুই পাড়ে জামনগর বাজার, তমালতলা বাজার, বাগাতিপাড়া থানা ভবন, দয়ারামপুর সেনানিবাসসহ গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা গড়ে উঠেছে। এছাড়া অসংখ্য জেলে পল্লী জীবিকার প্রয়োজনে গড়ে উঠেছে। কিন্তু পানি উন্নয়ন বোর্ড ১৯৮১-৮২ অর্থ বছরে নদের তীরবর্তী উপজেলাগুলোকে বন্যামুক্ত করার জন্য উৎসমুখ চারঘাটে বাঁধ নির্মানের মাধ্যমে পানির স্বাভাবিক গতি প্রবাহ বন্ধ করে দেয়।
এছাড়াও বিভিন্ন স্থানে সুইসগেট ও বাঁধ নির্মানের মাধ্যমে পানির স্বাভাবিক গতি প্রবাহ বন্ধ করে দেয়। এছাড়াও বিভিন্ন স্থানে সুইসগেট ও বাঁধ নির্মানের ফলে ক্রমান্বয়ে বড়াল নদ শুকিয়ে শীর্ণ খালে পরিনত হয়েছে। বর্ষায় নদে কিছু পানি জমলেও শুষ্ক মৌসুমের শুরুতেই শুকিয়ে মরা নদে পরিনত হয়। এ সুযোগে এ সময়ে এলাকার কৃষকরা নদের বুক জুড়ে ফসলের আবাদ করেন। পরিনত হয় গবাদী পশুর চারন ক্ষেত্রে। এক সময় যে বড়ালের পানির সেচে নদের তীরবর্তি মানুষ তাদের জমিতে ফসল ফলাত এখন সে নদের বুকে অগভীর নলকূপ বসিয়ে চলে ইরি চাষ। নদ আছে, নৌকা আছে, নেই শুধু পানি। নদে পানি না থাকায় এ নদকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠা ব্যবসা বানিজ্যের কেন্দ্রগুলো তার ঐতিহ্য হারাতে বসেছে। প্রতিদিনের প্রয়োজনের অতিরিক্ত ভূগর্ভস্থ পানি ব্যবহার করায়

নাটোরে ফেসবুকে রাষ্ট্র বিরোধী গুজব ছড়ানোর অভিযোগে দুইজন অাটক

নাটোর প্রতিনিধি
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে রাষ্ট্র বিরোধী গুজব ছড়ানোর অভিযোগে নাটোরের বড়াইগ্রাম থেকে সোহেল শাহরিয়ার ও এনামুল হক নামে দুই যুবককে আটক করেছে র‌্যাব-৫। এ সময় তাদের এই সকল অবৈধ কাজে ব্যাবহৃত একটি কম্পিউটার সেট জব্দ করা হয়েছে। শনিবার বিকালে বড়াইগ্রামের রয়না ভরাট গ্রাম থেকে তাদের আটক করা হয়। আটককৃত সোহেল শাহরিয়ার রয়না ভরাট গ্রামের আব্দুর রহিমের ছেলে এবং এনামুল হক একই এলাকার আফছার আলীর ছেলে।
নাটোর র্যাব-৫ ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার জানান , সাইবার মনিটরিং এবং ডিজিটাল এভিডেন্স পর্যালোচনায় প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে বড়াইগ্রামের রয়না ভরট গ্রামে অভিযান চালনো হয়। অভিযানকালে আটককৃতদের কাছ থেকে প্রাপ্ত কম্পিউটার সেট তল্লাশী করে রাষ্ট্র বিরোধী, ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত, মানহানিকর ও ভুয়া ভিডিও তৈরি করে তা ইন্টারনেট ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গুজব ছড়িয়ে দিয়ে জনমনে বিরুপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি এবং দেশের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটানোর তথ্য পাওয়া যায়।
পরে কম্পিউটার সেট সহ তাদের আটক করা হয়। আটককৃতদের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দায়েরে করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *